ওয়্যারলেস হেডফোন

ইয়ারফোন নিয়ে অনেকেই বিশাল মুশকিলে পড়ে যান আমার মত। ইয়ারফোন কিনলে তা এক মাসেই নষ্ট হয়ে যায়। এই ইয়ারফোনের রয়েছে আবার নানান রকমের ডিজাইন। সবার ইয়ারফোনের পছন্দও আলাদা।

প্রথমে একটু দেখে নিই ইয়ারফোন কি কি ধরণের হয়ে থাকে। আমি ইয়ারফোনের কথা বলছি, হেডফোন নয়। একটু সহজ ভাষায় বুঝিয়ে দিচ্ছি।হেডফোন হলো যেগুলো আমাদের মাথার উপর দিয়ে ব্যান্ডের মত থাকে। হেডফোন সাধারণত পিসি বা ল্যাপটপের সাথে বেশি ব্যবহার করা হয়। এগুলো কানের বেশিরভাগ অংশ ঢেকে রাখে। সাউন্ড কোয়ালিটি বেশ ভালো ও লাউড হয়। গেইম খেলতে ও ভয়েস চ্যাটে কথা বলতে সুবিধা বেশি এই হেডফোনগুলো দিয়ে। এগুলো তারযুক্ত বা তারবিহীন দুই রকমই হয়ে থাকে

অন ইয়ার হেডফোনঃ

অভার দ্য ইয়ার হেডফোনঃ

 

ইয়ারফোন হলো মোবাইল হ্যান্ডসেটের সাথে যেগুলো ব্যবহার করা হয়। এগুলো আমাদের কানের ভেতর ঢুকে থাকে। এগুলো তারযুক্ত ও তারবিহীন দুই ধরণের হয়ে থাকে। তারযুক্ত হলে তারের শেষে ৩.৫ মিমি জ্যাক থাকে যা দিয়ে মোবাইলের সাথে সংযুক্ত করা যায়। তবে ইয়ারফোনকে অনেকেই হেডফোন বলে। এমনকি মোবাইল কোম্পানীগুলোও এগুলোকে ইয়ারফোন বলায় তা এখন হেডফোন নামেই বেশি পরিচিত।ইন-ইয়ার ইয়ারফোন এখন সবচেয়ে জনপ্রিয়। বেশিরভাগ ইউজারই এগুলো পছন্দ করে থাকে। ইন-ইয়ার ইয়ারফোনের যে অংশটি থেকে সাউন্ড বের হয় তার চারদিকে রাবারের একটি পর্দা থাকে। এটি কানের ফুটোর ভেতর ঢুকে থাকে। ফলে নড়াচড়া করলেও ইয়ারফোন খুলে পড়েনা। অন্যদিকে কানের কাছে হওয়ায় সাউন্ডও ভালো শোনা যায়। নয়েস ক্যান্সেলেসনের জন্য ইন-ইয়ার সবচেয়ে কার্যকরী।

 

সাধারণ ইয়ারফোন, যেগুলো মোবাইল সেটের বক্সের সাথে দেয় সেগুলোই মূলত ইয়ারবাড বা আউট-ইয়ার ইয়ারফোন। এটাকে অনেকে অন-ইয়ার ইয়ারফোনও বলে থাকে। এটি কানের ভেতর ঢুকে থাকে না। কানের উপর আলতোভাবে লেগে থাকে। একসময় এই ইয়ারফোনগুলোই সবচেয়ে জনপ্রিয় ছিলো। এখন বাজার হাতে গোনা কয়েকটি আউট-ইয়ার ইয়ারফোনের মডেল পাওয়া যায়। অ্যাপলের ইয়ারপড এই তালিকায় পড়ে।

 ইয়ার ক্লিপ কানের সাথে পেঁচিয়ে থাকে। এগুলো ইয়ারবাড ইন-ইয়ার বা আউট-ইয়ার দুই রকমই হতে পারে। ওয়ারলেস ইয়ারফোনগুলোতে এরকম ক্লিপ সিস্টেম রাখা হয় যাতে তা কান থেকে খুলে না পড়ে।কিছু কিছু ব্লুটুথ ইয়ারফোনগুলো এরকম হয়ে থাকে। এটির দুটি ইয়ারবাড একটি তার দিয়ে যুক্ত থাকে। তারটি ঘাড়ে পেঁচিয়ে রাখতে হয় যাতে ইয়ারফোন খুলে না যায়। এছাড়া এই তারটিতে ভল্যুম কন্ট্রোলার ও স্পীকার থাকে।

২ thoughts on “ওয়্যারলেস হেডফোন

  • মে ১৮, ২০১৮ at ৮:৩১ পূর্বাহ্ণ
    Permalink

    I have checked your website and i have found some duplicate content, that’s why you don’t rank high in google’s search results,
    but there is a tool that can help you to create 100% unique articles, search for; SSundee advices unlimited content
    for your blog

    Reply
    • মে ১৮, ২০১৮ at ১২:০৬ অপরাহ্ণ
      Permalink

      hi
      how many duplicate content? would u please share with me and find out, please help me ,I m new user on the website.

      Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: