তাসফিয়ার মৃত্যু রহস্য!!

চট্টগ্রাম নগরীর সানশাইন গ্রামার স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী তাসফিয়ার রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় এখন সন্দেহের তীর আদনানের বন্ধু সোহেলের দিকে। তাসফিয়া ও আদনান দু’জনের পরিবারই জানিয়েছে, সোহেলকে গ্রেফতার করতে পারলে ঘটনার প্রকৃত রহস্য উম্মোচন হবে। দুই পরিবারই তাকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন।

তবে আদনানকেই তিনি প্রধান সন্দেহভাজন মনে করছেন। মোহাম্মদ আমিন বলেন, আদনানই তার বন্ধুদের মাধ্যমে আমার মেয়েকে খুন করেছে। আমি আমার মেয়ের হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি চাই।

তাসফিয়া হত্যার ঘটনায় মোহাম্মদ আমিন পতেঙ্গা থানায় আদনানসহ ছয়জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেছেন। ওই মামলায় সোহেলকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে মোহাম্মদ আমিন উল্লেখ করেন, আদনান মির্জার সঙ্গে গত দুই/তিন মাস আগে আমার মেয়ের বন্ধুত্ব হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। তাই আমার মেয়ের প্রতি আক্রোশের বশবর্তী হয়ে তাকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে আদনান মির্জা মামলার অপরাপর আসামিদের সহায়তায় তাকে নেভাল বিচ এলাকায় নিয়ে অজ্ঞাত আসামিদের পরস্পর যোগসাজশে পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যা করে।

আমরাও চাই তাসফিয়ার মৃত্যু রহস্য উন্মোচন হোক। যত তাড়াতাড়ি তার মৃত্যুর রহস্য উম্মোচন হবে, তত তাড়াতাড়ি আমার ছেলে ছাড়া পাবে। কারণ, আমার ছেলে নির্দোষ। ঘটনার দিন বিকাল ৫টায় সে বাসা থেকে বের হয়। সন্ধ্যায় তাসফিয়াকে রেস্টুরেন্ট থেকে সিএনজিতে তুলে দিয়ে সন্ধ্যা ৭টার দিকে তার ফুফুর বাসায় যায়। পরে সেখান থেকে তাসফিয়ার বাবার কল পেয়ে আবার ওই রেস্টুরেন্টে যায়। রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত তাসফিয়ার বাবার সঙ্গে থাকার পর রাত পৌনে ১২টার দিকে বাসায় আসে। এরপর পরদিন বিকাল ৫টা পর্যন্ত সে বাসায় ছিল। তাহলে সে কীভাবে এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকবে?

তিনি আরও বলেন, আমি আজ শনিবার (৫ মে) দুপুরে কারাগারে আমার ছেলের সঙ্গে কথা বলেছি। সে জানিয়েছে তাসফিয়ার মৃত্যুর সঙ্গে তার কোনও সম্পৃক্ততা নেই। শুধু রেস্টুরেন্টে খেতে গেছে, এর বাইরে সে কিছু জানতো না। রিচ কিডস গ্রুপ নামে কোনও গ্রুপের সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা নেই বলে সে আমাদের জানিয়েছে এবং পুলিশও তাকে এ ধরনের কোনও বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেনি।

ইস্কান্দর মির্জা বলেন, ঘটনার দিন রাত থেকে পরদিন বিকাল পর্যন্ত সে আমাদের বাসায় ছিল। আমরা তার মধ্যে কোনও অস্বাভাবিক আচরণ দেখিনি। পরদিন বিকালে আসিফ মিজানই তাকে কল করে পুলিশের হাতে ধরিয়ে দেয়।ইস্কান্দার মির্জা আরও বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে সোহেলের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। আমরা খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি, সে বাসায়ও নেই। সে আত্মগোপন করেছে। তাই আমাদের ধারণা এ ঘটনার সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা থাকতে পারে। তাকে গ্রেফতার করা গেলে ঘটনার রহস্য উন্মোচিত হবে।

তাসফিয়ার মৃত্যু রহস্য উন্মোচনে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা তাসফিয়ার মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানে কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের একটু সময় দিন। খুব শিগগির আমরা প্রকৃত ঘটনা আপনাদের সামনে তুলে ধরতে পারবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *