বজ্রপাতে তিন স্কুলছাত্রীসহ ১২ জনের প্রাণহানি

বজ্রপাতে শুক্রবার দেশের বিভিন্ন স্থানে কলেজছাত্র ও স্কুলছাত্রীসহ ১২ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জে দু’জন, হবিগঞ্জে দু’জন, কিশোরগঞ্জে দু’জন, লক্ষ্মীপুর, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ, জামালপুর, পটুয়াখালী ও গাইবান্ধায় একজন করে প্রাণ হারিয়েছে। এসব ঘটনায় আহত হয়েছে তিনজন। প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর :

আড়াইহাজারে কলেজছাত্র: শুক্রবার বজ্রপাতে অনয় দেবনাথ (১৯) নামে এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের সিংগারপুর এলাকার জয় দেবনাথের ছেলে অনয় স্থানীয় সরকারি সফর আলী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন। নিহতের পরিবার জানায়, দুপুরে ক্ষেত থেকে ধান কেটে বাড়িতে ফেরার সময় বজ্রাঘাতে প্রাণ হারান অনয়।

এদিকে মাধবদীতে বজ্রপাতে মাহবুবুর রহমান (৩৫) নামে এক কৃষক নিহত হয়েছেন। দুপুরে কাঁঠালিয়া ইউনিয়নের মৈষাদী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তিনি সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা এলাকার বাসিন্দা। তিনি ওই এলাকায় কাজে এসেছিলেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী জানান, দুপুরে তার জমির ধান কাটতে গিয়ে বজ্রাঘাতে প্রাণ হারান মাহবুবুর রহমান।

বাহুবলে দিনমজুর: হবিগঞ্জের বাহুবলের পুটিজুরীতে শুক্রবার বজ্রাঘাতে কাজী আবুল কালাম (৪২) নামে এক দিনমজুর নিহত হয়েছেন। তিনি পুটিজুরী ইউনিয়নের উত্তর ভবানীপুর গ্রামের বাসিন্দা। জানা যায়, সকালে কয়েকজন দিনমজুর গুঙ্গিয়াজুরি হাওরে ধান কাটতে যান। দুপুরে হঠাৎ বজ্রপাতে কালাম ঘটনাস্থলেই মারা যান। বিকেলে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত) রফিকুল ইসলাম নিহতের বাড়ি গিয়ে তার স্ব্বজনের হাতে ২০ হাজার টাকা অনুদান দেন। এ ছাড়া জেলার বানিয়াচঙ্গে দুপুরে বজ্রপাতে রবি দাস (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার মুড়াআব্দা গ্রামের বাসিন্দা। তিনি সকালে বাড়ির পার্শ্ববর্তী হাওরে ধান কাটতে গিয়েছিলেন।

কুলিয়ারচরে স্কুলছাত্রী: কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার খালখাড়া-কোনাপাড়া গ্রামে শুক্রবার বজ্রপাতে এক স্কুলছাত্রী নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হয় আরেক ছাত্রী। নিহত হাওয়া বেগম (১৫) ওই এলাকার মৃত গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে। ওই দুই ছাত্রী বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে গিয়েছিল। বজ্রপাতে দু’জন আহত হয়। তাদের হাসপাতালে নেওয়ার পথে হাওয়া বেগম মারা যায়। আহত স্মৃতি আক্তার চিকিৎসাধীন।

রামগতিতে কৃষক: লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে বৃহস্পতিবার রাতে বজ্রপাতে আলতাফ উদ্দিন নামে এক কৃষক নিহত হয়েছেন। রামগতি থানার ওসি এটিএম আরিচুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। রাতে রঘুনাথপুর এলাকা থেকে ফেরার পথে ব্রজাঘাতের শিকার হন কৃষক আলতাফ উদ্দিন।

কুলাউড়ায় স্কুলছাত্রী: মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার বরমচাল ইউনিয়নের আকুলপুর গ্রামে শুক্রবার বজ্রপাতে লাবণী আক্তার (১৩) নামে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। সে ওই এলাকার আবদুর রহিমের মেয়ে। সকালে বাড়ির উঠানে লাবণী কানামাছি খেলছিল। এ সময় বজ্রপাতে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেপে গিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মিঠামইনে কৃষক: কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে দক্ষিণের বড় হাওরে শুক্রবার ধান কেটে খলায় নিয়ে আসার পথে বজ্রপাতে সুরুজ আলী (৫৫) নামে এক কৃষক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আবদুর রহমান (৪০) ও সেলু মিয়া (৩৫)। তাদের বাড়ি নরসিংদীর সদর উপজেলার পুরাদিয়া গ্রামে। তারা প্রতি বছর বড় হাওরে অস্থায়ীভাবে ধান চাষ করতে আসতেন।

তাহিরপুরে শ্রমিক: সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে বজ্রপাতে জাফর মিয়া (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের গড়কাটি গ্রামের বাসিন্দা।

বাদাঘাট ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মনির উদ্দিন জানান, সকালে যাদুকাটা নদীতে বারকি নৌকার পানি সেচ করতে যান জাফর মিয়া। পরে পরিবারের লোকজন ঘাট থেকে তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে। স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নেওয়া হলে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

জামালপুরে স্কুলছাত্রী: পৌর শহরের বাগেরহাটা বটতলা এলাকায় বজ্রপাতে জান্নাতি (১৩) নামে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। সে ওই এলাকার ব্যবসায়ী মোহাম্মদ জামিলের মেয়ে। বাগেরহাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ত জান্নাতি। পরিবার জানায়, দুপুরে বৃষ্টির মধ্যে জান্নাতি বাড়ির উঠানে আম কুড়াতে যায়। এ সময় বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে।

বাউফলে নৈশপ্রহরী ও গরুর মৃত্যু: পটুয়াখালীর বাউফলে শুক্রবার বজ্রপাতে পূর্ব নওমালা সালেহিয়া দাখিল মাদ্রাসার নৈশপ্রহরী হাবিবুর রহমান সর্দার (৪৫) নিহত হয়েছেন। এ সময় তার একটি গরুর মৃত্যু হয়। তিনি বিকেলে গোয়ালে গরু তুলতে গিয়ে বজ্রাঘাতের শিকার হন।

সাঘাটায় কিশোর: গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায় শুক্রবার দুপুরে নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে রানা বাবু (১৬) নামে এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। সে হলদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ দিঘলকান্দি গ্রামের কাইয়ুম মণ্ডলের ছেলে। হলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ইয়াকুব হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন।

চৌদ্দগ্রামে শ্রমিক: কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বজ্রপাতে শুক্রবার বিকেলে অমল (৩০) নামের এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিসাশহর এলাকার বাসিন্দা।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহজাহান সেলিম জানান, অমল পাশাকোট গ্রামের জাহাঙ্গীরের জমিতে কাজ করছিলেন। এ সময় বজ্রপাতে তার মৃত্যু হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: