মশা বাহিত মারাত্মক জিকা ভাইরাসের হুমকি!!

‘জিকা’! ছোট্ট নাম, কিন্তু ভয়ানক। মশা বাহিত রোগ হল জিকা। মানুষের শরীরে যদি এই রোগের জীবাণু একবার দানা বাঁধতে শুরু করে তাহলেই গেল। স্নায়বিক জন্ম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হতে পারে এই রোগের জীবাণুর জন্য। ক্যারাবিয়ান দেশগুলি সহ আমেরিকার বিভিন্ন দেশে আগে থেকেই মশা বাহিত এই জীবাণুর জন্য সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। এছাড়া মোট ২৫টি দেশে জিকা রোগে আক্রান্ত হয়েছেন বহু মানুষ। আক্রান্ত মানুষদের মধ্যে রয়েছেন বহু গর্ভবতী মহিলাও। ফল স্বরূপ অস্বাভাবিক বাচ্চার জন্ম হয়েছে। দেখা গেছে বেশিরভাগ বাচ্চার মাথা দেহের তুলনাউ অনেক ছোট কিংবা বড় হয়েছে।

প্রিভেনটিভ মিডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, জিকা ভাইরাসের ধরন অনেকটা ডেঙ্গু ও চিকুন গুনিয়া জ্বরের মতো। এতে রক্তক্ষরণ হয় না। সাধারণত জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত দশজনের মধ্যে একজনের লক্ষণ দেখা যায়। আর জিকা ভাইরাসের জন্য চিকিৎসারও খুব দরকার নেই। এর জন্য দরকার পানি পান করা, বিশ্রামে থাকা, তাজা ফলমুল-শাকসবজি বেশি খাওয়া ও ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়াতেই এর চিকিৎসা সম্ভব। কিন্তু সমস্যা হলো, কোনও গর্ভবতী নারী যদি জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত হন, তবে তার গর্ভস্থ শিশু বিকলাঙ্গ হতে পারে। মস্তিষ্ক বৃদ্ধিটা যথাযথ হয় না। ফলে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী শিশু জন্ম নেয়।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রে জিকা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা রোগের পরীক্ষা, ভ্যাকসিন ও চিকিৎসা উন্নয়নে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানিয়েছেন। গর্ভাবস্থায় এই ভাইরাসের আক্রমণ মারাত্মক বলে মত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রথম তিন মাস সময়ে যখন অনেক নারী গর্ভাবস্থা নিয়ে নিশ্চিত  থাকেন না, সে সময়েই আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা সর্বাধিক বলে জানিয়েছেন তারা। কেননা, এই ভাইরাস প্ল্যাসেন্টা বেয়ে শিশুর শরীরে পৌঁছে যায় ও শিশুর মস্তিষ্ককে পূর্ণরূপ নিতে বাধা দেয়।
তথ্যসুত্র: ইনটারনেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: